Amar Pujo Toronto Blog Amar Pujo Toronto Blog Amar Pujo Toronto Blog Amar Pujo Toronto Blog

আরেকটি ভূতের গল্প - Souvik Guha

Print

নাহ আজকে আর বৃষ্টিটা থামবে বলে মনে হয় না ভাবলো সুদীপ্ত.. অবশ্য তাতে যে ওর কিছু এসে যায় তা নয়.. প্ল্যাটফর্ম ‘র যেখানটা তে ও দাড়িয়ে আছে সেখানটা তে বৃষ্টির ছাঁট আসছে না.. রাত এগারোটার এক্সপ্রেসটার সময় হয়ে এলো..

প্ল্যাটফর্ম’র ছাদটা তে বৃষ্টির ফোঁটা গুলো একটা অদ্ভুত রিদম এ পড়ে যাচ্ছিলো..কলেজে পড়তে ড্রামটা ভালই বাজাতো সুদীপ্ত.. পাঁচ বছর হয়ে গ্যালো লাস্ট drum বাজিয়েছে..

 

সুদীপ্ত হঠাত  খেয়াল করলো যে  ও একা নয় প্ল্যাটফর্ম’র শেডটাতে..

মেয়েটা এলো কখন?.. কোনো সাড়াশব্দ পায়নি তো..

হয়তো  একথা সেকথা ভাবতে গিয়ে খেয়াল করেনি ... এতো রাতে মেয়েটা একা.. দিনকাল যা পড়েছে..একটু ভালো করে দেখার চেষ্টা করলো মেয়েটাকে.. শেডটা যা অন্ধকার.. লাইটগুলো বোধহয় মায়া হয়ে গ্যাছে.. মানুষই মায়া হয়ে যাচ্চ্ছে.. তো লাইট.. এক ঝলক বিদ্যুতের আলোয় দেখে মনে হলো মেয়েটা বছর কুড়ি’র  হবে..  

মেয়েটার দিকটা তে কি বৃষ্টির জল আসছে? ভাবলো মেয়েটা কে ওর দিকটাতে এসে দাড়াতে বলে.. সেই মেয়ে দেখলেই হিরো হওয়ার চেষ্টা.. স্বভাব পাল্টালো না আর... একটু হাসলো সুদীপ্ত.. তারপর বলেই ফেললো..

-        এইযে … আপনিতো ভিজে যাবেন ওখানটাতে.. এদিকটাতে এসে দাঁড়াতে পারেন কিন্তু

মেয়েটা একটু হেসে বললো..

-          আমি ঠিক আছি.. আর ভিজলেই বা কি আর না ভিজলেই বা কি.. Thanks anyways..

মেয়েটার হাসিটা কেমন যেনো ..মায়াবী.. কুহকিনী টাইপ মায়া নয়.. গ্রীষ্মের দুপুরে গাছের তলায় বসলে যেমন একটা ঘোর লাগে..সেইরকম..

-          লাস্ট লোকালটা ধরবেন বুঝি? – জিগ্গেস করলো সুদীপ্ত        

জবাব পেলো না কোনো…. আবার জিগ্গেস করলো

-          অফিস থেকে দেরি হয়ে গেলো?

-          না আমি অফিস থেকে ফিরছি না.. বাড়িও যাচ্চ্ছি না..আরকিছু?

অদ্ভুত মেয়ে তো ভাবলো সুদীপ্ত. ..পরিষ্কার করে বলতে কি হয় যে কোথায় যাবে.. কি করছে কি এতো রাতে স্টেশনএ? যাকগে ওর বেশী লোড নিয়ে লাভ নেই..

বৃষ্টির শব্দটা শুনতে শুনতে নিজের অজান্তেই হাত দুটো drum বাজানোর শ্যাডো করছিলো বোধহয়.. মেয়েটার কথায় ঘুরে তাকালো..

-          আপনি drum বাজান?

-          বাজাতাম..

-          আর বাজান না ক্যানো?

-          শোনানোর লোক পাইনা বলে.. আরআপনি?…গান টান করেন নাকি?

-              করতাম..

-             আর করেননা? ক্যানো?

-              শোনানোর লোক নেই বলে..

শালা লেগ পুল করছে নাকি মেয়েটা.. আবছা আলোতে মুখটা ঠিক দেখতে পেলোনা.. হাসছে? কে জানে.. হঠাত বিদ্যুতের আলোতে তাকিয়ে দেখে জায়গাটা খালি..মেয়েটা নেই.. গেলো কোথায়?

-          আমাকে খুঁজছেন? ভাবলেন ভ্যানিশ হয়ে গেলাম ? অদ্ভুত ভাবে হাসলো মেয়েটা

-          না না.. মানে কখন এলেন  শেডের এদিকটাতে ঠিক বুঝতে পারিনি

-          আমি কিন্তু সত্যিই ভ্যানিশ হতে পারি

নিজের ঠান্ডা হাতগুলোতে হঠাত ভীষন ঠান্ডা লাগছিলো সুদীপ্ত'র

-          কি যে বলেন.. চাইলেই কি মানুষ ভ্যানিশ হতে পরে..

-          বিশ্বাস করছেন না? তাহলে তো ভ্যানিশ হয়ে দেখাতেই হয় আপনাকে.. তারপরে একটু ভেবে একটা চাপা স্বরে বললো মেয়েটা.. না থাক.. আপনি ভয় পাবেন..   

-          না না ভয় পাবো ক্যানো? আপনি তো আর..        

কথাটা শেষ হওয়ার আগেই মেয়েটা খসখসে গলায় বলে উঠলো..

-          আগে গান গাইতাম জানেন.. নাকিসুরে কি আর গান হয় .... এখনসবাই বড্ডো ভয় পায়.. আপনি পাচ্চ্ছেন না..?

 

 

প্রায় এসে পড়েছে ট্রেন টা.. দূর থেকে হেডলাইট টা দেখা যাচ্চ্ছে.. ইঞ্জিনটার আওয়াজ টাও তীব্র থেকে তীব্রতরো হয়ে উঠছে … এখুনি ঝড়ের বেগে ঢুকে পড়বে প্ল্যাটফর্ম টায়..আর সময় নেই বেশী.. একটু ম্লান হেসে বললো সুদীপ্ত..

-          নাহ .. আমাকে ভয় দেখানোর চেষ্টাটা আপনার মাঠেই মারা গেলো....           

বলতে বলতে সুদীপ্তর শরীরটাই আস্তে আস্তে হাওয়ায় মিলিয়ে গ্যালো.. বহু দূর থেকে ওর গলাটা খালি ভেসে এলো মেয়ে টার কানে..

-          পাঁচ বছর আগে হলে হয়তো ভয় পেতাম.. এখন খালি একটাই আফশোস.. অশরীরি হাতে আর drumটা বাজানো যায় না..

পরের দিন সকালে ঝিলিককে ওর বন্ধুরা প্ল্যাটফর্মটাতে অচৈতন্য অবস্থায় খুঁজে পায়.. বাজি রেখে অতরাতে স্টেশনে  একা এসেছিলো …  ছেলেটা কেএকা দেখে ভয় দেখানোর arbit প্ল্যানটার এই পরিণতি ঠিক ভাবতে পারেনি মেয়েটা.. পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পরে যে প্রায় পাঁচ বছর আগে.. একটা ছেলেকে জানে কোন শান্তির খোঁজে বেছে নিয়েছিলো রাতের এক্সপ্রেস ট্রেনটা..  !!

সৌভিকের পরিচিতি:

শ্রী শৌভিক গুহ বহু ঘাটের জল খেয়ে স্ত্রী-পুত্র সহ আপাতত থিতু হয়েছেন টরন্টো শহরেছোটোবেলা থেকেই শীর্ষেন্দু”, “শরদিন্দু” আর “I hate সুচিত্রা ভট্টাচার্জ” fan-club এর একনিষ্ঠ মেম্বার| সংসার এবং অফিস সামলে সময় পেলে বই পড়ার নেশাটা কোনো রকমে টিকিয়ে রেখেছেন, খালি সেটা মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে মাঝে মাঝে কিছু লেখা উপচে পড়ে আমার পত্রিকায়|  

Comments  

 
#5 Subroto sen 2013-11-18 19:37
Likhtei haabe?
Quote
 
 
#4 Nandita 2013-10-08 20:56
twist ta fatafati..:)
Quote
 
 
#3 Anuradha Sen 2013-10-06 18:29
Bhalo laaglo bhoot-er golpo with a twist at the end
Quote
 
 
#2 Sunit 2013-10-04 20:39
Khub Sundar, amar moto boi pagol ekohono ache!
Quote
 
 
#1 Anasuya 2013-10-04 17:33
daroon laglo pore :)
Quote
 

Add comment

Security code
Refresh

Sunday the 21st. Amar Pujo Toronto | Home | Joomla 3 Templates Joomlaskins